নাজমুন নাহারের দক্ষিণ আমেরিকার গল্প || Najmun Nahar's Story of South America Tour || Anannya

‘শান্তির দূত’ ও ‘ধরিত্রীর কন্যা’ বাংলাদেশের মেয়ে নাজমুন নাহার।

নাজমুন নাহার সব কিছু ছাপিয়ে ক্রমশ এগিয়ে চলেছেন এক বিস্ময়কর অভিলক্ষ্যে। একটি মেয়ে একা একা কিনা ঘুরে ফেলেছেন বিশ্বের ১৩৫টি দেশ! অর্জন করেছেন কত বিচিত্র অভিজ্ঞতা।
সম্প্রতি তার মুকুটে যুক্ত হয়েছে আরো একটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার। তাকে গত ২৭ অক্টোবর ২০১৯ নিউইয়র্কের বিশ্বশান্তির দূত হিসেবে খ্যাত কুইন্সের ‘শ্রী চিন্ময় ওয়াননেস হার্ট সেন্টারের এসপিরেশন গ্রাউন্ডে’ দেওয়া হয় ‘পিস টর্চ অ্যাওয়ার্ড’ ও ‘ডটার অব দ্য আর্থ’ উপাধি। উল্লেখ্য, প্রথম পিস টর্চ বিয়ারার পুরস্কারটি নয়বারের অলিম্পিক স্বর্ণপদক এবং পিস রানের মুখপাত্র কার্ল লুইসকে দেওয়া হয়েছিল। তারপর মিখাইল গর্বাচেভ, নেলসন ম্যান্ডেলা, মায়া অ্যাঞ্জেলোসহ বিশ্ববিখ্যাত ব্যক্তিরা পেয়েছেন। এছাড়াও পিস টর্চ অ্যাওয়ার্ডটি স্লোভেনিয়ার রাষ্ট্রপতি ড. ড্যানিলো টার্কে, তিমুর লেস্টের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ডা. মারি অ্যালকাতিরি, নিউইয়র্কের সংগীতজ্ঞ ফিলান্ট্রোপিস্ট এবং হিপ-হপ অগ্রগামী রাসেল সিমন্স, আমেরিকার ইতিহাসের সর্বাধিক জনপ্রিয় দূরত্বের দৌড়বিদ মেব কেফলেজিঘিসহ বিশ্বের কিছু বিশিষ্ট ব্যক্তি অর্জন করেছেন, যারা অন্যের সেবায় উৎসর্গ করেছেন নিজের জীবন।
===============================================
পাক্ষিক অনন্যার নিয়মিত আয়োজনে স্বাগতম দর্শক।
অনুষ্ঠান ভালো লাগলে সাব্সক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি।
===============================================
বাংলাদেশের জন্য এটা অত্যন্ত আনন্দের যে, আমাদেরই মেয়ে নাজমুন নাহার নিজের দেশকে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি শান্তির বার্তা পৌঁছে দেওয়ার জন্য অবিরত পৃথিবীব্যাপী কাজ করে যাচ্ছেন। লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশের লাল-সবুজের পতাকা হাতে ঘুরে ফেলেছেন পৃথিবীর ১৩৫টি দেশ। পৃথিবীর ইতিহাসে নাজমুনের মতো এমন নারী বিরল যিনি এক দেশ থেকে আরেক দেশে হাজার হাজার মাইল সড়ক পথে একা একা ভ্রমণ করছেন নিজ দেশের পতাকা হাতে। দিনে রাতের অন্ধকারকে একাকার করে পর্বতে, সমুদ্রের তলদেশে, দুর্গম জঙ্গলে, বন্যপ্রাণীর পাহাড়ে, অজানা আদিবাসীদের এলাকায়–কোথাও যেতে ভয় পাননি এই নারী। বিপদসংকুল জায়গায় তিনি সবখানেই কোনো না কোনো হৃদয়বান ব্যক্তির সহযোগিতা পেয়েছেন। এসব দুঃসাহসী ভ্রমণের জন্য তিনি পেয়েছেন অসংখ্য পুরস্কার। অর্জন করেছেন বাংলাদেশের নারীদের সম্মাননার ‘অনন্যা শীর্ষদশ’ পুরস্কার পেয়েছেন। তার বিশ্ব অভিযাত্রার মাইলফলকের সম্মাননা স্বরূপ জাম্বিয়া সরকারের গভর্নর হ্যারিয়েট কায়োনার কাছ থেকে পেয়েছেন ‘ফ্ল্যাগ গার্ল’ উপাধি। এ ছাড়া এই বছর তিনি অতীশ দীপঙ্কর গোল্ড মেডেল সম্মাননা লাভ করেন। অর্জন করেন জনটা ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড, তিন বাংলা সম্মাননা ও রেড ক্রিসেন্ট মোটিভেশনাল অ্যাওয়ার্ড। গত সেপ্টেম্বরে পেয়েছেন ‘মিস আর্থ কুইন অ্যাওয়ার্ড’।
দুঃসাহসী এই নারী পরিব্রাজকের জন্ম ১৯৭৯ সালের ১২ ডিসেম্বর উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরের সদর উপজেলার হামছাদী ইউনিয়নের গঙ্গাপুর গ্রামে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে ২০২১ সালের মধ্যে তিনি ভ্রমণ করতে চান বিশ্বের ২০০টি দেশ।
======================================
অতিথি : নাজমুন নাহার
উপস্থাপক : জামাল উদ্দীন
সম্পাদনা : আনোয়ার সায়েম
সার্বিক তত্ত্বাবধানে : তাপস কুমার দত্ত
প্রযোজনায় : তাসমিমা হোসেন
======================================

All Right Reserve Anannya Magazine

source

You may also like...

Leave a Reply